আবিদ-আব্দুল্লাহর ব্যাটে পাকিস্তানের দারুণ সূচনা

২৭ নভেম্বার ২০২১ ০৭:০২:২৭
আবিদ-আব্দুল্লাহর ব্যাটে পাকিস্তানের দারুণ সূচনা
ক্রিড়া ডেস্ক

সকাল থেকে শুরু, আর শেষ প্রহরে শেষ দিনের পুরো গল্পটাই পাকিস্তানের। এদিন হতাশায় কেটেছে বাংলাদেশের। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের রঙিন গল্পটাকে ফিকে করে দিয়েছে বাংলাদেশের বোলিং। আজ বাংলাদেশ ৭৭ রান করতেই হারিয়েছে ৬ উইকেট। ৩৩০ রানের মত সংগ্রহ প্রথম সময়ে যথেষ্ট মনে হলেও এখন সেটি অনেক কম মনে হচ্ছে নিবির্ষ বোলিংয়ের কারনে।

 

ব্যাটিংয়ে প্রথম সেশনে ছয় উইকেট হারিয়ে আশানুরূপ সংগ্রহ করতে পারেনি মুমিনুল হকের দল। পরের দুই সেশনে ৫৭ ওভার বোলিং করে বোলাররাও ছিলেন ব্যর্থ। প্রথম ইনিংসে বিনা উইকেটে ১৪৫ রান সংগ্রহ করেছে পাকিস্তান। রাহি-এবাদতরা ফিরেছেন খালি হাতে।

 

দুই ওপেনার আবিদ আলী ও আব্দুল্লাহ শফিকের ব্যাটে দারুণ সূচনা পেয়েছে পাকিস্তান। আবিদ তুলে নিয়েছেন টেস্ট ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক। ৯৩ রানে অপরাজিত আছেন তিনি। অপেক্ষায় আছেন টেস্টে চতুর্থ সেঞ্চুরির জন্য। তার সাথে ৫২ রানে ক্রিজে আছেন অভিষিক্ত শফিক। অভিষেকে দারুণ এক ফিফটি তুলে নিয়েছেন ডানহাতি ওপেনার।

 

এর আগে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৩৩০ রান করে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের ব্যাটিং অর্ডার একাই গুঁড়িয়ে দেন পাকিস্তানের পেসার হাসান আলী। দ্বিতীয় দিনের ছয় উইকেটের মধ্যে চারটি হাসান আলীর শিকার। প্রথম ইনিংসে হাসান নিয়েছেন পাঁচটি উইকেট।

 

আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটার মুশফিক-লিটন প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন দ্বিতীয় দিনের শুরতেই। আজ দিনের দ্বিতীয় ওভারে হাসান আলীর বলে এলবিডব্লিউর আবেদন উঠলে আম্পায়ার সম্মতি দেননি। তবে রিভিউ নিয়ে ঠিকই লিটনের বিদায় নিশ্চিত করে পাকিস্তান। ডানহাতি এই ব্যাটার ২৩৩ বল খেলে ১১টি চার ও একটি ছক্কায় ১১৪ রানে আউট হন। আজ মাত্র এক রান যোগ করতে পেরেছেন ইনিংসে। পঞ্চম উইকেট জুটিতে লিটন-মুশফিক ৪২৫ বলে ২০৬ রান তোলেন। এরপর ব্যাটিং করতে নেমে অভিষেক টেস্ট সুখকর করতে পারেননি ইয়াসির আলী রাব্বি। হাসান আলীর বলে বোল্ড হয়েছেন ব্যক্তিগত ৪ রানে। ৮২ রানে প্রথম দিন অপরাজিত থাকা মুশফিক আউট হয়েছেন নার্ভাস নাইনটিতে। ৯১ রান করে ফাহিম আশরাফের শিকার হন তিনি। এ নিয়ে টেস্ট ক্রিকেটে চতুর্থবার মুশফিক ৯০ এর ঘরে আউট হলেন।

 

মেহেদি হাসান মিরাজ ভালো ব্যাটিং প্রদর্শনী দেখালেও তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি বাকিরা। শেষ পর্যন্ত ৩৮ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। তাইজুল ইসলাম ১১ ও আবু জায়েদ রাহির ব্যাট থেকে আসে ৮ রান। শাহিন শাহ আফ্রিদি ও ফাহিম নেন দুটি করে উইকেট।

মন্তব্য

এই নিবন্ধটি জন্য কোন মন্তব্য নেই.

আপনার মন্তব্য লিখুন